আফরান নিশো কি বললো সাকিব খানের বিরুদ্ধে? সাকিব খান কি তার বিরুদ্ধে কোনো পদক্ষেপ নিবে নাকি না? | afran nisho vs shakib Khan | what did afran nisho says about shakib khan| surongo vs priyotoma

 আফরান নিশো প্রথম ছবিতেই একি বললো শাকিব খানকে? তবে কি শুরু হয়ে গেল হাড্ডা হাড্ডি লড়াই? আসুন জেনে নেই আজকের টপিকে। 


আফরান নিশো ও শাকিব খানের লড়াই
আফরান একি বললো শাকিব খান কে?

আফরান নিশো  এবং শাকিব খানের দুইটি মুভি বের হয়েছে । আফরান নিশোর যে মুভিটা বের হয়েছে তার নাম হয়েছে সুরঙ্গ এবং অপরদিকে শাকিব খানের যে ছবিটি বের হয়েছে তার নাম হচ্ছে প্রিয়তমা । দুইটা ছবি কিন্তু এখন হলে চলছে ধুম ধারাক্কা। দুইটা ছবি কিন্তু একটা সাথে আরেকটা টক্কর দিচ্ছে। তবে একি বলল আফরান নিশো শাকিব খানকে এখন । আসুন জেনে নেই বিস্তারিত ।


সুরঙ্গ মুভিটি হচ্ছে আফরান নিশোর এই প্রথম করা কোনো মুভি ।এরকম মুভিতে তিনি কখনোই কাজ করেনি এর আগে। তবে তিনি কিন্তু অনেক বেশি নাটক করেছেন । নাটকের জন্য আফরান নিশোর জনপ্রিয়তা অনেক বেশি। আফরান নিশোর  কিছুদিন আগেই একটা নাটক বের হয়েছে যার নাম  হচ্ছে পূর্ণ জন্ম। পূর্ণ জন্ম নাটকটা বেশ সারা ফেলেছে কয়েক দিনের মধ্যেই ।মিলিয়ন মিলিয়ন ভিউজ  হয়েছে যার রয়েছে অনেক পর্ব । আফরান নিশু কিন্তু অনেক আগে থেকে অনেক বেশি ফেমাস তবে এখন কিন্তু তার এই নাটকের ফলে আরও বেশি ফেমাস হয়ে গিয়েছে । এরই মাঝে এই নাটক বের হওয়ার সাথে সাথে কিন্তু কিছুদিন পরেই তার একটা ছবি বের হয়েছে। যার নাম হচ্ছে সুরঙ্গ। 


অপরদিকে আমাদের মুভি ইন্ডাস্ট্রি কিং খান শাকিব খান যেমন ছবি করে নাম কামাচ্ছে তারও কিন্তু নতুন একটি ছবি বের হয়েছে যার নাম প্রিয়তমা। প্রিয়তমা সম্প্রীতি অনেক বেশি সাড়া ফেলেছে দর্শকদের মনে। দুইটাই বাংলাদেশের ছবি হওয়ায় অনেক সুরঙ্গের পক্ষ নিছে অনেকে আবার প্রিয়তমা পক্ষ নিচ্ছে। তবে শাকিব খান যে কিনা সব সময় মুভি ইন্ডাস্ট্রিতে মুভি করেই এত বড় মুভি স্টার হয়ে গেছে। তার ছবিতে টক্কর দেওয়া মুখের কথা না। দুইটা ছবি দুই রকম ভাবে সুন্দর। 


দুইটা মুভি হলে থাকায় এখন দুইটা ছবি একটা অপরটি কে অনেক বেশি টক্কর দিচ্ছে। পাশাপাশি আফরান নিশো নাটক করে এত বেশি ফেমাস হয়ে গিয়েছে যে তার মুভি এখন অনেক বেশি হিটে  চলতাছে। সাথে সাথে প্রিয়তমা মুভিটা দেখে কাঁদে নি  এমন মানুষ হয়তো খুব কমই আছে। আর শাকিব খানের করা বেস্ট একটা মুভি হচ্ছে এই প্রিয়তমা। আবার সুরঙ্গ  মুভি টাও আফরান নিশো করার প্রথম এবং বেস্ট একটা মুভি যেখানে সুরংগো মুভি ছিলো টুইস্ট আর থ্রিলার এ ভরপুর। আফরান নিশোর অভিনয় তো অসাধারণ সব সময় মত। 


২ নায়কের মধ্যে ঝগড়া 


সত্যি বলতে বলা যায় যে ,দুইটা মুভি দুই রকমের সুন্দর। একটা যেমন অনেক থ্রিলার এবং টুইস্টিং  এ ভরপুর ,ডিরেক্টর এত সুন্দর মুভি করেছে সুরঙ্গ মুভিটা ।আবার অপরদিকে ,প্রিয়তমা মুভিটা হচ্ছে চোখে পানি এনে দেওয়ার মতো । শাকিব খানের অভিনয় এবং এইখানে যে ভালোবাসার একটা ছাপ রয়েছে তা হয়তোবা অন্য কোন মুভিতে দেখা সম্ভব না। প্রিয়তমা মুভিতে শাকিব খানের যে  অভিনয় ছবির শেষে দেখানো হয়েছে তা দেখে দর্শকের কান্না ভরা ভিডিও এই পর্যন্ত সোশ্যাল মিডিয়াতে ভাইরাল। আবার আফরান নিশোর অভিনয় এবং থ্রিলারের যে গল্প তা রীতিমত শরীরে কাটা দেওয়ার মত।


সুতরাং বলাই যায় দুইটা মুভি দুই ধরনের বেস্ট অভিনেতা দিয়ে করা । তবে আফরান নিশু কিন্তু এমন কিছু বলে ফেলেছে এখন শাকিব খানকে যার জন্য হতে পারে দুজনের মধ্যে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই । দুজনের মুভি এবং পার্সোনালিটি দুই ধরনের আলাদা আলাদা । কিন্তু তাদের মধ্যে কিন্তু কোন শত্রুতামি সম্পর্ক ছিল না । তবে রিসেন্টলি আফরান নিশো শাকিব খানকে খোঁচা মেরে কিছু একটা বলেছে এর জন্য এখন পর্যন্ত শাকিব খানের কাছ থেকে কোন প্রকার উত্তর শোনা যায়নি । তবে বলা যায় যে এই জন্য শাকিব খান কোন না কোন পদক্ষেপ হয়তো নিতে পারে । যদিও এখানে শাকিব খানের নাম ধরে কিছুই বলা হয়নি তবে তাকে ইঙ্গিত করি যে এটা মিডিয়ার সামনে কথা বলা হয়েছে তা কিন্তু সবাই বুঝেই ফেলেছে। 


শাকিব খান এবং আফরান নিশোর নতুন মুভির জন্য কিন্তু দুইজনকে অনেক ধরনের মিডিয়া এবং ইন্টারভিউ এর সম্মুখীন হতে হচ্ছে ।তারা দুইজন যেহেতু নতুন ছবি করেছে তাই তাদেরকে অনেক অনেক লোক ডাকছে এবং অনেক মিডিয়া সম্মুখীন হতে হচ্ছে । এইখানে তাদেরকে নিজেদের ছবি প্রিয়তমা ও সুরঙ্গ সম্পর্কে যেরকম জিজ্ঞাসা করা হচ্ছে , তেমন অন্যান্য ছবি সম্পর্কেও কিন্তু জিজ্ঞাসা করা হচ্ছে যা কিনা তাদের বিপরীতে চলছে বা তাদের সাথে লড়াই দিয়ে চলছে । অন্যান্য অভিনেতাদের সম্পর্কেও কিন্তু একজন আরেকজনকে মিডিয়ারা জিজ্ঞাসা করছে।

 

সম্প্রতি এইরকম মিডিয়ার সম্মুখীন সবচেয়ে বেশি হচ্ছে আমাদের শাকিব খান এবং আফরান নিশো ।যদিও শাকিব খান সময়ের জন্য হয়তোবা বেশি মিডিয়ার সাথে দেখা করতে পারছে না তবে আফরান নিশো  মোটামুটি ভালই সময় দিচ্ছে মিডিয়াতে।কারণ এটা হচ্ছে তার প্রথম ছবি । এতে করে কিন্তু আফরান নিশোর মুখ দিয়ে হঠাৎ করে শাকিব খানের বিরুদ্ধে একটা কথা বের হয়ে যায় যা কিনা সে শাকিব খানকে সরাসরি নাম ধরে বলেনি তবে এইটা যে শাকিব খানের জন্যই বলেছে তা ধারণা করা হচ্ছে। 


আফরান নিশো শাকিব খানকে যে কথাটি বলেছে এর জন্য কিন্তু আফরান নিশোর বিরুদ্ধে কেউ নেই বরঞ্চ তার পক্ষেই অনেকে কথা বলছে কেননা সে যে কথাটা বলেছে তা কিন্তু কোন অংশেই মিথ্যা বলা যায় না। দেখা দেয় যে মিডিয়াতে হঠাৎ করেই প্রশ্নের উত্তর দাও পাশাপাশি আফরান নিশো বলে ওঠে, আর কত ৪০ এর উপর তো বয়স হলই। আমার তো মিথ্যা বলার কোন কারণই হয় না। আর আমি তো আর অন্যান্য নায়কদের মতো না যে কিনা বিয়ে করে বাচ্চা হওয়ার পরও মিথ্যা বলবো এবং লুকিয়ে রাখবো। আমার মিথ্যা বলার কিছু নেই এমন কি আমার বিয়ে করে বাচ্চা হয়ে লুকিয়ে রাখার মত কিছু নেই এগুলো তো লুকানোর কোন বিষয় না ।



তার এই কথা শুনে বোঝাই যাচ্ছে যে সে পুরোপুরি এটা শাকিব খানকে নির্দেশ করেই বলেছেন। আমরা সবাই জানি যে শাকিব খান অনেক আগেই অপু বিশ্বাসকে বিয়ে করেছেন এবং তাদের একটা ছেলেও  ছিল হয়েছে। শাকিব খান প্রথমত অপু বিশ্বাসের এই কথাটা কিন্তু স্বীকার করতে চায়নি যে সে অপু বিশ্বাসকে বিয়ে করেছে । কিন্তু যখন কিনা মিডিয়ার সামনে অপু বিশ্বাস তার ছেলে আব্রাহামকে নিয়ে আসে তখন শাকিব খানের আর কোনো উপায় থাকে না এবং সে তার ছেলে এবং বউকে মেনে নিতে বাধ্য হয় । সে স্বীকার করে যে সে অপু বিশ্বাসকে বিয়ে করেছে তবে তাদের মধ্যে ডিভোর্স হয়ে যাবে। সাত-আট বছরের সংসার, শাকিব খান তাকে ডিভোর্স দিয়ে দেয় এবং এখানে শাকিব খান তার বউ এবং ছেলেকে অস্বীকার করে।তখন কিন্তু অপু বিশ্বাস এবং বুবলির মধ্যে অনেক ধরনের ঝগড়া হয়। 


আবার সেইম ঘটনায় কিন্তু বুবলির সাথেও ঘটে গেল  বুবলিও কিন্তু  তার ছেলেকে নিয়ে হঠাৎ মিডিয়ার সামনে এসে বলল যে শাকিব খানের ছেলে। এবং এভাবে বুবলি শাকিব খানের পর্দা ফাঁস করে দিল ।দেখা গেল যে শাকিব খান বুবলিকে এবং তার সন্তানকে আবারো অপু বিশ্বাসের মতোই লুকিয়ে রাখতে চেয়েছিল। কিন্তু এইবারও সে আবারো ধরা পড়ে গেল। যেমন অপু বিশ্বাসের সন্তান নিয়েও কেউ জানতো না তেমনি কিন্তু বুবলিরও এত বড় সন্তান নিয়েও কেউ কিছু জানতেই পারলো না। শাকিব খান দুইটাই লুকিয়ে গেল। 


এই বিষয়ে আফরান নিশো বলেছে মিডিয়াতে। যদিও তার কথা কোন মিথ্যা নেই তবুও কারো পার্সোনাল লাইফ নিয়ে এইভাবে বলা তার হয়তোবা ঠিক হয়নি। কিন্তু জনগণ কিন্তু মোটেই আরফান নিশোর উপর রাগ হয়নি কেননা শাকিব খান কিন্তু সত্যিই তার দুইটা বউ এবং বাচ্চাকে জনগণের কাছ থেকে  থেকে লুকিয়ে রেখেছেন যার  আর কোন দরকারই ছিল না। একজন বাংলাদেশের হাই লেভেলের সুপারস্টার এই ধরনের কাজ কিন্তু কোনভাবেই গ্রহণযোগ্য নয়। এখন আপনারাই বলুন আফরান নিশো এই কথা মিডিয়ার সামনে বলে কি ভালো করেছে নাকি খারাপ? এর জন্য কি শাকিব খান কোন পদক্ষেপ নিতে পারে নাকি না?

Post a Comment

0 Comments